top of page

NIP NGO দ্বারা আয়োজিত 'অন্য দুর্গা', ভিন্নভাবে সক্ষম এবং সিনিয়র সিটিজেন ফ্রেন্ডলি দুর্গোৎসব


কলকাতা, ১৬ অক্টোবর, ২০২৩: এনআইপি এনজিও অন্ধদের জন্য এবং অন্যান্য ভিন্নভাবে সক্ষমদের জন্য একটি শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র - ফোরাম ফর দুর্গোৎসব, সায়নী ইন্টারন্যাশনাল স্কুল, মমতা সুমিত বিনানী ফাউন্ডেশন, রোটারি ক্লাব অফ ক্যালকাটা ওল্ড সিটির সহযোগিতায় যারা এই দুর্গাপুজোয় প্যান্ডেলগুলিকে প্রবীণ নাগরিক এবং প্রতিবন্ধীদের জন্য বন্ধুত্বপূর্ণ করার চেষ্টা করছে সেই পূজা কমিটির জন্য একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে। যেখানে ৩০০টি দুর্গা পুজো কমিটি অংশ নেবে। তারা কলকাতার হাজরা পার্ক দুর্গোৎসব-এ সচেতনতামূলক প্রচারাভিযান হিসাবে 'অন্য দুর্গা'- র ধারণাটিও প্রদর্শন করেছে।





অনুষ্ঠানটি অনেক বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বের উপস্থিতিতে অনুপ্রাণিত হয়েছিল যেমন: শ্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়, কৃষিমন্ত্রী, রাজ্য সরকার; শ্রী সায়ন দেব চ্যাটার্জি, হাজরা পার্ক দুর্গোৎসব কমিটির যুগ্ম সম্পাদক; শ্রী তপন পট্টনায়ক, সাইনি গ্রুপের সিইও; সিএস (ড.) অ্যাড. মমতা বিনানি, NIP NGO-এর প্রধান পৃষ্ঠপোষক এবং MSME ডেভেলপমেন্ট ফোরাম পশ্চিমবঙ্গের সভাপতি; শ্রী জুয়েল চৌধুরী, সভাপতি রোটারি ক্লাব কলকাতা ওল্ড সিটি; শ্রী দেবজ্যোতি রায়, NIP NGO-এর সেক্রেটারি সহ আরও অনেক বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।


গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন, সিএস (ড.) অ্যাড. এনআইপি এনজিও - র প্রধান পৃষ্ঠপোষক এবং এমএসএমই ডেভেলপমেন্ট ফোরাম ওয়েস্ট বেঙ্গল- এর সভাপতি মমতা বিনানি বলেছেন, “আমরা একটি সচেতনতামূলক প্রচারাভিযান হিসাবে অন্য দুর্গা কনসেপ্টটি তৈরি করতে এই অনন্য উদ্যোগ নিয়েছি। এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে আমরা দৃষ্টি প্রতিবন্ধী দেবী দুর্গা ও অসুর, হুইলচেয়ারে আবদ্ধ গণেশ, বুদ্ধি প্রতিবন্ধী লক্ষ্মী, সরস্বতী এবং কার্তিককে প্রদর্শন করতে চাই। উদ্দেশ্য একটি বিশাল স্বীকৃতি দেওয়া যে প্রতিবন্ধীতা একটি বিশেষ ক্ষমতা, এবং আমরা বিশ্বকে বলতে চাই যে এই বিশেষ ক্ষমতাটিকে মূল স্রোতের সঙ্গে গুরুত্ব দেওয়া এবং অন্তর্ভুক্ত করা দরকার। দুর্গাপুজোর এই শুভক্ষণে, যখন শক্তি পুজো করা হয় এবং পালিত হয় সেই সময়টিকেই আমরা বেছে নিয়েছি। অতীতে আমরা ব্রেইল দুর্গা পূজা গাইড এবং ব্রেইল ডিসপ্লে স্ট্যান্ড ফর দ্য ব্লাইন্ড চালু করেছি।”





অনুষ্ঠান সম্পর্কে বলতে গিয়ে হাজরা পার্ক দুর্গোৎসব কমিটির জয়েন্ট সেক্রেটারি শ্রী সায়ন দেব চ্যাটার্জি বলেন, “সাধারণত, পুজোর পুরস্কারগুলি গ্ল্যামার, জাঁকজমক, শিল্পকর্ম এবং ভিজ্যুয়াল গিমিকসের মাপকাঠিতে বিচার করা হয়। কিন্তু এখন মানদণ্ড পরিবর্তন করা হয়েছে। কারণ বিশেষভাবে সক্ষমদের আমরা যে সুযোগ-সুবিধা দিই তার ভিত্তিতেও এটি বিচার করা হবে। দুর্গাপুজো পশ্চিমবঙ্গের সবচেয়ে বড় উৎসব। পশ্চিমবঙ্গের মানুষ উৎসবটি দারুণ আড়ম্বরে উপভোগ করে। কিন্তু মানুষ সমাজের অন্য অংশ যথা ভিন্নভাবে সক্ষম এবং প্রবীণ নাগরিকদের কথা ভুলে যায়।"


অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সাইনি গ্রুপের সিইও শ্রী তপন পট্টনায়ক। তিনি বলেন, “আমরা জানি এনআইপি তাদের কাজের ক্ষেত্রে কতটা দায়িত্ববান এবং কার্যকর। এই ধরনের একটি মহৎ কাজের সাথে যুক্ত হওয়া আমাদের সম্মানের বিষয়। আগে প্যান্ডেল-হপিং এবং প্রতিমা দর্শন বিশেষভাবে সক্ষম এবং প্রবীণ নাগরিকদের জন্য একটি অকল্পনীয় ব্যাপার ছিল কারণ তারা ভিড়ের প্যান্ডেলে যেতে পারত না।"





এনআইপি এনজিওর পটভূমি: (ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ প্রফেশনালস) এনআইপি এনজিও - দৃষ্টি এবং অন্যান্য ভিন্নভাবে সক্ষমদের জন্য একটি শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। NIP ৩ ডিসেম্বর, ২০১২- এ "স্টেট অ্যাওয়ার্ড"-এর পুরস্কারে ভূষিত হয়েছিল। এছাড়াও, এটি কলকাতার বিভিন্ন অংশে এবং পশ্চিমবঙ্গের অন্যান্য জেলাগুলিতে বেশ কয়েকটি সচেতনতা শিবিরের আয়োজন করছে। এনআইপির লক্ষ্য অন্ধ এবং ভিন্নভাবে সক্ষম ব্যক্তিদের সম্ভাব্য সব উপায়ে সাহায্য করা। এটি অল বেঙ্গল দাবা প্রতিযোগিতা এবং দৃষ্টিগত ভাবে সক্ষমদের জন্য T-20 ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ইত্যাদিরও আয়োজন করেছে।



Edited By

Swarnali Goswami


Comments

Rated 0 out of 5 stars.
No ratings yet

Add a rating

Top Stories

bottom of page