বিনোদন

'মেন্টাল ম্যানিফেস্টো' - সমাজকে, তার মানুষজনকে অন্যভাবে বিশ্লেষণ করার এক প্রয়াস



একটি ঘোষণাপত্র। যেখানে বিশ্লেষণ করা হচ্ছে মানুষের মানসিক পরিস্থিতি নিয়ে। আমরা সাধারণ মানুষ খুব সহজেই মানসিক বা স্বাভাবিক আচরণের একটু এদিক-ওদিক দেখলেই তকমা দিয়ে দিই পাগলামো করছে না কি? কিন্তু অতই কী সহজ, মানুষের অস্বাভাবিকতাকে বিশ্লেষণ করা? তারই উত্তর খুঁজে চলেছেন পরিচালক দিগন্ত দে তাঁর প্রথম ইনভেস্টিগেটিভ ডকু ফিচার 'মেন্টাল ম্যানিফেস্টো'-য়।

আসলে মানুষের আচরণ বা মানসিক পরিস্থিতি নিয়ে বিশ্লেষণ করার মধ্যে বা সেই খোঁজের মধ্যেই আছে একটা স্পর্ধা। সমাজের চেনা ছক থেকে বেরিয়ে মানুষকে অন্যরকমভাবে ভাবানোর একটা প্রচেষ্টা, যা করে দেখাচ্ছেন দিগন্ত। সামাজিক বা মানসিক কোন পরিস্থিতির মধ্যে দাঁড়িয়ে একটি মানুষ তার নিজের ভারসাম্য হারিয়ে ফেলছে, তাও আমরা অনুধাবন করতে পারব এই ছবি থেকে। ছবিতে যেমন রয়েছে সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষের মানিসক অবস্থার বিশ্লেষণ, তেমনি রয়েছে ডাক্তার, অভিনেতা, পরিচালকদের এই নিয়ে মন্তব্য। রয়েছে সমাজের ধর্মীয় দিক, অসামাজিক কার্যকলাপের পেছনে মানুষের মানসিকতার বিশ্লেষণ। শুধুমাত্র দেশের তথ্য নিয়েই সন্তুষ্ট থাকেননি দিগন্ত, পড়াশুনো করেছেন বিদেশেরও বেশ কিছু ঘটনা নিয়ে এবং অবশ্যই তা উঠেও এসেছে এই ছবিতে।

ছবিটিতে আছেন বেশ কিছু বিখ্যাত মানুষ যেমন কমলেশ্বর মূখার্জী, সুদেষ্ণা রায়, চন্দন সেন প্রমুখ, যাঁরা নিজেদের মত করে এই বিষয়টি বিশ্লেষণ করেছেন। সিনেমা টিতে থাকছেন ২৬/১১ মুম্বই হামলায় দোষী কাসভের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আব্বাস কাজমী। তিনি সম্পূর্ণ ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গিতে দেখেছেন বিষয়টি এবং তাঁর মতামত ব্যক্ত করেছেন। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, আব্বাস কাজমী প্রথমবার মুখ খুলছেন এই ছবিটিতে। এছাড়াও পরিচালকের কথা অনুযায়ী - 'ছবিতে খুব শীঘ্রই বিভিন্ন দেশের সেনসিটিভ ডকুমেন্ট লিক করা হবে কারণ তার সাথে অনেকগুলি বিষয় ওতপ্রোতভাবে জড়িত!'

ডায়োরামা আন্তর্জাতিক ফিল্ম বাজারে 'মেন্টাল ম্যানিফেস্টো' প্রজেক্ট টি রেকমেন্ডেশন অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে। ছবিটি নিয়ে ইতিমধ্যেই উৎসাহ তৈরী হয়েছে প্রচুর ফিল্ম জগতের মানুষজনের। ছবিটি যে অন্যরকমভাবে সমাজের অন্যরকম একটি বিষয় মেলে ধরতে চাইছে তা হলফ করে বলাই যায়। অধীর আগ্রহে তাই সকলেই অপেক্ষায় রয়েছেন ছবিটি মুক্তির। অতিমারির এই সময়ে মাঝে মাঝেই ছবি তৈরির ক্ষেত্রে এসেছে বাধা। কিন্তু সমস্ত বাধা পেরিয়ে আর কিছুদিন পরেই মুক্তি পেতে চলেছে 'মেন্টাল ম্যানিফেস্টো'। পোস্ট প্রোডাকশনের কাজ শেষ করে ছবিটি মুক্তি পেতে পারে ২০২২ এর জানুয়ারি মাসে এমনটাই মনে করছেন, বলা ভালো এমনটাই চাইছেন পরিচালক।

পরিচালকের বিষয়ে বলতে গেলে বলতে হয়, এর আগে একাধিক পুরস্কার প্রাপ্ত শর্ট ফিল্ম করেছেন দিগন্ত দে। এশিয়ার ২০ জন উঠতি পরিচালকের মধ্যে ২০২০ সালে পরিচালক দিগন্ত দে জাপানের 'কিয়োটো ফিল্মমেকারস ল্যাব' এ আমন্ত্রণ পেয়েছেন। যেখানে মোট আবেদনকারী ছিলেন ১৫০০ এর কাছাকাছি। সম্প্রতি, কলকাতায় ঋতুরঙ্গম চলচ্চিত্র উৎসবের 'ফেস্টিভ্যাল অ্যাডভাইসার' হয়েছেন। দেশে ট্যালেন্ট পুল তৈরীর লক্ষ্যে ফিল্মমেকারস ল্যাব আয়োজন করা হচ্ছে। সেখানে হলিউড, বলিউড ও কলকাতার নামজাদা চলচ্চিত্র ব্যক্তিদের মেন্টর হিসেবে নিয়ে আসতে দিগন্ত-র একটি বড় ভূমিকা থাকছে। সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল দিগন্ত দে, কোনো ফিল্ম স্কুল ট্রেইন্ড নন, ২০২০ সালে FTII থেকে ফিল্ম এপ্রিসিয়েশন করেছেন। তাঁর কথায় সিনেমা হলো "একটা লার্জ আর্ট ফর্ম, যা হাতে ধরে শেখানো যায় না। চোখ তৈরী করতে হয়। এখন এই গ্লোবালাইজেশনের দুনিয়ায় শেখাটা খুব একটা কঠিন কিছু নয়, ভাল বই পড়ুন, সিনেমা দেখুন, জার্নাল পড়ুন সেটাই অনেকটা কাজে দেবে কিন্তু আপনাকে অন্যান্যদের থেকে আলাদা ফর্ম তৈরি করতে হবে যা মানুষের মন ছুঁয়ে যায় তবেই মানুষ আপনার কাজকে আলাদা জায়গা দেবে"। ছবিটিতে চিত্রগ্রহণ করেছেন কৌস্তভ ধারা এবং সম্পাদনায় রয়েছেন রাজকুমার মৈত্র।

Carousel imageCarousel imageCarousel imageCarousel imageCarousel imageCarousel imageCarousel imageCarousel image

Written By

Swarnali Goswami

আমির খান ও কিরণ রাও নিজেদের ডিভোর্স ঘোষণা করলেন

ডিভোর্স ঘোষণা করলেন আমির খান ও কিরণ রাও। শনিবার সকালেই একটি যৌথ স্টেটমেন্টে আমির ও কিরণ জানান, তাঁদের ডিভোর্স হয়ে গিয়েছে। গত বেশ কিছুদিন ধরে তাঁরা প্ল্যান্ড সেপারেশনে ছিলেন বলে জানান তাঁরা। জীবনে নতুন পথ চলা শুরু করার খবর ফ্যানদের জানাতেই এই ঘোষণা। সারোগেসির মাধ্যমে হওয়া একমাত্র সন্তান আজাদ-এর কো-পেরেন্টিংয়ের দায়িত্ব যে তাঁরা একসঙ্গে পালন করবেন সে কথাও স্পষ্ট জানিয়ে দেন। তাঁরা জানিয়েছেন, ‘আমরা বিচ্ছেদের পরিকল্পনা বেশ কিছু সময় আগেই করে ফেলেছিলাম, এখন আমরা বিষয়টা জনসমক্ষে আনতে স্বচ্ছন্দবোধ করছি। আমরা আলাদা থাকলেও আমরা কিন্তু একই পরিবারের অংশ, সেভাবেই আমরা জীবনটা ভাগ করে নেব। আমরা আমাদের সন্তান আজাদের প্রতি সমর্পিত, যাঁকে একসঙ্গেই আমরা বড় করব’।


Written By- Swarnali Goswami